/ / BENGALI LOVE STORY -' তুই আমার পরিণীতা '

BENGALI LOVE STORY -' তুই আমার পরিণীতা '







তিথি -- কিরে পাগলু কি করছিস? রিপ্লাই দিচ্ছিস না কেন !

নীল -- তোর কথা ভাবছি...

তিথি -- এহ! ঢং যত্তসব ! 
নীল -- ঠিক...আমার বয়েই গেছে তোর কথা ভাবতে…হুহ….

তিথি -- সেই... তা কার কথা ভাবছিস?

নীল -- সে আছে একজন…তোকে কেন বলতে যাবো !

তিথি -- সেই...আমাকে কেন বলবি বল...আমি আর কে?

নীল -- ওহহ ঠিক আছে...আর ঢং করতে হবেনা…

তিথি -- তাহলে বল কার কথা ভাবছিলি?

নীল -- তোর সতীনের কথা…

তিথি -- তোর বউ হলাম কবে? আর সতিন! 

নীল -- সেই সত্য যুগ থেকেই তো তুই আমার বউ ! 

তিথি -- মজা বাদ দে! নতুন গার্লফ্রেন্ড পটিয়েছিস নিশ্চই?

নীল -- তোর মাথা...আমার আবার গার্লফ্রেন্ড !

তিথি -- থাক...আর নাটক করতে হবেনা... কবে দেখাচ্ছিস বল বৌদি কে?

নীল -- দেখতে চাইলে এখনই দেখাতে পারি !

তিথি -- নেট নাই অত তোর গার্লফ্রেন্ড কে দেখার...

নীল -- নেট লাগবে নাহ...

তিথি -- কেমনে সম্ভব !!!!! BENGALI LOVE STORY

( তিথি জানে নীল ওকে পছন্দ করে কিন্তু বলতে পারে নাহ, এদিকে নীলের ও একই অবস্থা । ফ্রেন্ডশিপ ভাঙ্গার ভয়ে কিছু এখনো বলতে পারে নি ও তিথি কে । ওদের বন্ধুত্ব একদম ই নতুন । একে অপরকে ফেইসবুকে দেখে থাকলেও ফ্রেন্ডশিপ ওদের মাস তিনেক এর । কিন্তু এই শেষ এক মাসে দুজনের জীবনেই খারাপ সময় এসেছে । আর সেই খারাপ সময় থেকে বেরোতে ওরা একে অপরকে সাহায্য করেছে । সোশাল মিডিয়ায় যে যার কথা বলেছে, দিনের অনেকটা করে সময় একসাথে গল্প করেই কাটিয়েছে । তাদের দেখা হয়নি কখনো সামনাসামনি । তাও দুজন দুজনকে এইটুকু সময়েই অনেকটা আপন ভাবতে শুরু করেছে। সকালে উঠেই প্রথম মেসেজ থেকে শুরু করে রাতে ঘুমনোর আগের শেষ মেসেজ...আর কেউ যদি অন্যজনের মেসেজের রিপ্লাই দিতে দেরি করে….. ব্যাস... ওমনি মুখ ভার । একজন না খেলে আরেকজন খায় নাহ। একজন নেয় ঘুমোলে অন্যজন ঘুমোয় না । আর সব চেয়ে অবাক ব্যাপার হচ্ছে দুজনের ভালো অভ্যাস খারাপ অভ্যাস, পছন্দ অপছন্দ সবকিছুই অপ্রত্যাশিত ভাবে মিলে যেত । আর তাই দুটো মনের মিল ও হয়েছিল খুব তাড়াতাড়িই । সারাদিনের দুস্টুমি, অভিমান, হাসি কান্না সব ভাগাভাগি করে নিত একে অপরের সাথে । সব মিলিয়ে  সুন্দর ই চলছিল । কিন্তু এরকম ভাবে কতদিন চলবে? দুজনেরই তো দুজনের মনের ভেতরের কথা জানা দরকার ! নীল ভাবলো … তিথিকে যদি অন্য কেউ নিজের করে নেয়...তাহলে তো ওর নিজের মনের কথা আর কোনওদিনই বলা হয়ে উঠবেনা তিথিকে ! এইসব ভেবে নীল আর থাকতে পারছে নাহ। তাই চিন্তা করলো বলেই দেবে সব মনের কথা যা হওয়ার হবে। )

নীল -- দেখে হিংসে করবি না তো ? ও কিন্তু 
    খুব মিষ্টি দেখতে !

তিথি -- ওও তাই বুঝি ! আচ্ছা...এবার বুঝলাম ফেইসবুকে ফটো আপলোড করে ক্যাপশনগুলো কাকে উদ্দেশ্য করে লিখিস !

নীল -- হাহাহাহা…

তিথি -- হমম...অনেক হেসেছিস ...নে এবার দেখা তাড়াতাড়ি। আমার অন্য কাজ আছে ।

নীল -- ওহ্ দাঁড়া না ! সবুরে মেওয়া ফলে জানিস না!

তিথি -- তুই দেখা তো বাপু !

নীল -- আচ্ছা দেখাচ্ছি...কিন্তু তার আগে তুই একটা কাজ কর... একবার আয়নার সামনে যা তো তাড়াতাড়ি !

তিথি -- কিন্তু কেন?

নীল -- তোকে ভিডিও কল করছি...তারপর দেখাবো তোকে...আর তাই বলছি মাথা আচড়ে আয় ঝটপট !

তিথি -- বাবাহ...খুব মজায় আছিস দেখছি ! ঠিক আছে কর... ROMANTIC LOVE STORY

*(video calling…)*

নীল -- কিরে এখনো যাসনি ! আরে যা নাহ…!

তিথি -- নে চুল আচড়ে নিয়েছি…দেখা এবার…

নীল -- যা ববাবা… দেখালাম তো! দেখিসনি !

তিথি -- মানেহ ! কি দেখালি দেখিনি?

নীল -- উফফ...ধুর...আয়নায় দেখ নিজের মুখ টা!

তিথি -- দেখছি তো! ওহ টিপ টা ভালোমতো বসে 
   নি… দাঁড়া…

নীল -- কি করে যে বুঝাই তোকে...কি যে আছে মাথার ভেতরে !

তিথি -- তোর কি শরীর খারাপ নাকি বলতো? ভুলভাল কিসব যে বলে যাচ্ছিস আমি কিছুই মাথা মুন্ডু বুঝতে পারছিনা…

নীল -- আমি ঠিকই আছি...তুই আয়নার ওপাশে কাউকে দেখতে পাচ্ছিস কিনা বল তো !

তিথি -- হুম পাচ্ছি । আমার মতো একই দেখতে একটা পেত্নি আমার দিকে তাকিয়ে আছে। 

নীল -- চুপ। ও পেত্নি নাহ। আমার বউ আর  তোর সতিন…

তিথি --  ………………………...(নিস্তব্ধতা)

২ মিনিট ওপাশ থেকে কোনো রিপ্লাই পেল না নীল । খুব ভয় পেয়ে গেল নীল । তবে কি হারিয়ে ফেললো তার বেঁচে থাকার কারনটা কেই ! হারিয়ে ফেললো তিথিকে নিয়ে দেখা এত স্বপ্ন এত আসাগুলোকে !!! স্তব্ধ হয়ে গেল ওর চোখ, ঘামে জরজরিত হয়ে গেল নীলের চেহারা। হয়তো এমন ভয় ও কখনো পায় নি ! এসব ভাবতে ভাবতেই হটাৎ করে দেখলো তিথি কোনো কিছু না বলেই অফ হয়ে গেলো । এবার আর কি করবে ভেবে পেলনা নীল । পাগলের মত তিথিকে মেসেজের পর মেসেজ করতে থাকলো…

( নীল ) -- " তিথি...তুই আমাকে ভুল বুঝিসনা প্লিজ...আমি তোর বন্ধুত্বের সুযোগ নিইনি বিশ্বাস কর আমি মন থেকে তোকে ভালোবেসে ফেলেছি । এটা অনেকদিন আগেই আমি বুঝেছিলাম কিন্তু ভয়ে তোকে বলতে পারিনি...তোকে হারিয়ে ফেলার ভয়ে...তোর বন্ধুত্ব হারিয়ে ফেলার ভয়ে... তুই প্লিজ আমায় ভুল বুঝিসনা প্লিজ আমাদের বন্ধুত্বটা ভেঙে দিসনা প্লিজ…" এক নাগাড়ে মেসেজ করে যেতে থাকলো নীল । মিনিট ছয়েক পরে ওপাস থেকে একটা মেসেজ এলো…

( তিথি ) -- " আমাদের বাড়ির পেছনের মাঠের বড়ো বট গাছটার পেছনে যাচ্ছি। ১৫ মিনিটের মধ্যে সেই জায়গায় যদি তোকে না দেখতে পাই তো দেখ কি করি ! তাড়াতাড়ি আয়... আমি অপেক্ষা করছি। " CUTE LOVE STORY

এই বলে আবার অফ হয়ে যায় তিথি । কিন্তু এই কয়েকটা মেসেজেই যেন প্রান ফিরে পেল নীল । তড়িঘড়ি করে রওনা দিল। ১২ মিনিটের মাথায় পৌঁছে গেল নীল। তখনও তিথি আসেনি সেখানে । ২ মিনিট পরে নীল দেখে তিথি আসছে। দূর থেকে বোঝা যাচ্ছে ওর মুখে হাসির ছাপ। আজ প্রথমবার দেখছে ওকে…ভ্যাবলা হয়ে তাকিয়ে থাকল নীল । তিথি একেবারে সামনে আসতে ও ওর সম্বিত ফিরে পেলো । তিথির সাথে দেখা করতে আসর আগে পকেটে করে একটা আংটি মনে করে নিয়ে এসেছে যেটা ওর দাদু দিয়েছিলো তার নাতবউকে পরানের জন্যে। আজ ও ওটা পরাবে তিথি কে। কিন্তু তিথি নীলের কাছে আসতেই তিথি মুখে এমন একটা ভাব নিল যেন সে প্রচুর রেগে আছে। নীল তো তা দেখে একটু ঘাবরে গেল । কাঁপা গলায় বললো...

নীল -- কিরে এরকম তাড়াহুড়ো করে ডাকলি?

তিথি -- তোকে আমি এমনটা ভাবিনিরে। তুই
  বন্ধুত্বটা নষ্ট করে দিলি।

নীল ভেতর থেকে ভেঙে পড়লো । ওর এতদিনের আশঙ্কাই তাহলে সত্যি হলো । এতদিন এই ভয়েই ও বলেনি তিথিকে কিচ্ছু । আজ সাহস দেখিয়ে বলে দিয়ে তিথিকে পুরোপুরিই হারিয়ে ফেললো ।

নীল -- সরি...তুই বন্ধুত্বটা প্লিজ ভেঙে দিসনা...আমি তোকে আর কখনো এসব কথা বলবোনা...একবার ক্ষমা করে দে আমাকে ।

তিথি -- কিসের সরি? কিসের ক্ষমা? তোর সাথে বন্ধুত্ব শেষ। আজ থেকে আমি তোর বন্ধু না।

নীল -- তুই যেটায় ভালো থাকিস তাই কর । আমি আর তোকে কখনো বিরক্ত করবোনা...ভালো থাকিস…

নীল মাথাটা নিচু করে চলে যাচ্ছে। পেছন থেকে তিথি ডাক দিলো। 

( তিথি ) -- কিরে যেটা নিয়ে আসলি পরিয়ে দিবি না????

নীল থমকে দাঁড়ালো । পেছন ফিরে তাকিয়ে দেখে তিথির চোখে জল ছলছল করছে। 

 তিথি -- তুই বুঝিস না কেন রে তোকেও আমি ভালোবাসি। তোর সাথে বন্ধুত্বের বাধনে আর থাকতে চাই না। তোর জীবনসঙ্গি করে নে আমায় । আমি জানি তুই আমায় বড্ড ভালোবাসিস।

নীল কি করবে বুঝতে পারছে না। হটাৎ তিথির সামনে হাঁটু মুড়ে বসে পড়লো। পকেট থেকে সেই আংটি টা বের করে ওর সামনে ধরলো । দুজনেই আজ খুব খুশি। নীল চোখটা বন্ধ করে একনাগারে বলতে শুরু করলো…..

( নীল ) -- তিথি... বলবো বলবো বলে বলা হয় নাহ ভয়ে। সত্যি বলতো তোকে কতটা ভালোবাসি নিজেও জানি না শুধু জানি তোর সাথে কথা না বলতে পারলে দম বন্ধ হয়ে আসে আামার। কিচ্ছু ভালো লাগে না । ঘুম হয় না আমার, তুই যখন মেসেজ এর রিপ্লাই দিচ্ছিলি না , আমার হৃৎপিণ্ড টা হাতে বের হয়ে চলে আসছিলো এমন অবস্থা ।

তারপর নীল আংটিটা তিথির সামনে আর একটু বাড়িয়ে দিয়ে বললো ...

( নীল ) -- নিঝুম...তুই হবি তো আমার জীবন সঙ্গি?

তিথি -- অও...হইনি এখনো ! আচ্ছা আচ্ছা...আমি তো ভেবেছিলাম হয়েই গেছি …..

নীল উঠে দাঁড়িয়েই জড়িয়ে ধরে নিলো তিথি কে । দিয়ে কানে কানে বললো …..

(নীল ) -- তোর এলোচুলগুলো চোখের উপর থেকে সরিয়ে দেওয়া অধিকার পেতে চাই...তোর গোলাপের পাপড়ির মতন ঠোঁট গুলো পরশে ছুঁয়ে দিতে চাই, দিবি তো সেই অধিকার? 

তিথি -- ভালোবাসি! তোর ভালো খারাপ প্রত্যেকটা সময় তোর কাছে থাকার পাশে থাকার অধিকার চাই আমি। তোর কপালে রোজ চুমু খেয়ে তোকে ঘুম থেকে তোলার অধিকার চাই আমি …

নীল তিথির গালে একটা ছোট্ট চুমু দিয়ে বললো …..

( নীল ) -- আমার সবকিছুর ওপর আমার চেয়েও তোর বেশি অধিকার ।

তিথি একবার ওর দিকে হেসে গলা জড়িয়ে বললো ….

( তিথি ) -- ঐইই শোন না...তিন্নির বাবা হওয়ার কারন হবি?

নীল -- তিন্নি? (একটু অবাক হয়ে জানতে চাইলো)

তিথি -- উফফ এটাও বুঝলি না! এইজন্য তোকে পাগলু বলি...কিচ্ছু বুঝিস না…

নীল -- বল না …!!!

তিথি -- নীল আর তিথির সংসারের ছোট্ট সদস্য । 

তিথি নীলের নাক টিপে বললো….

( তিথি ) -- তিথির তি আর নীল এর নি…. দুয়ে মিলে হবে তিন্নি...বুঝলে ভদুরাম !!!

নীল সেটা শুনে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে নীল তিথি কে…

( নীল ) -- ভালোবাসি, বড্ড ভালোবাসি তোকে... love you so much

তিথি -- I love you too

নীল তিথির দুটো গাল চেপে ধরে কপালে একটা চুমু দিলো । HEART TOUCHING LOVE STORY

( নীল ) -- তুই আমার ছোট্ট পরিণীতা

নীলের চোখে জল... আনন্দের জল...তিথি জড়িয়ে ধরলো নীল কে। নীলের শরীর কাঁপছে । তিথি নীলের পিঠে হাত বুলিয়ে দিলো । ওরা দুজন দেখা করতে এসেছিল বিকেলে । এখন সন্ধ্যে নেমে গেছে । মাঠের অন্যান্যরা যে যার বাড়ি চলে গেছে । ওরা দুজন দুজনের জন্য রয়েছে শুধু । সারাজীবন এভাবেই থাকবে দুজন দুজনের পাশে। নিজেদের সুখ দুঃখ হাসি কান্না সব ভাগাভাগি করে নেবে । কষ্ট হলে রাগ হলে অভিমান হলে অপরের বুকে মাথা রেখে সব মিটিয়ে নেবে...উজাড় করে ভালোবাসবে দুজন দুজনকে । আজ দুজনই প্রথম কাউকে জড়িয়ে ধরলো । ওদের সময় যেন থমকে রয়েছে ওখানে । দুজনের ঘন ঘন শ্বাস প্রশ্বাস...হৃৎপিণ্ডের ধুকপুকানি...সময়ের প্রত্যেকটা ছোটো ছোটো মুহূর্তও যেন অনুভব করতে পারছে তারা । অতঃপর তিথি নীলের কপালে একটা ছোট্ট আলতো মিষ্টি চুমু এঁকে হারিয়ে গেল এক নতুন জীবনে ।।


BENGALI LOVE STORY -' তুই আমার পরিণীতা ' BENGALI LOVE STORY -' তুই আমার পরিণীতা ' Reviewed by Bengali love status on May 02, 2020 Rating: 5

No comments:

Powered by Blogger.